Spread the love








অভিনব এক সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতের উত্তর প্রদেশের পুলিশ। পুলিশের গোঁফ থাকলে তাদের মধ্যে ভারিক্কি ভাব আসে, মান্যগণ্য করে মানুষ, ভয় পায় শিশু–কিশোরেরাও—এমনটা ভেবেই গোঁফের পরিচর্যার জন্য মাসে আরও ২০০ রুপি করে ভাতা বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে তারা।

একসময় পুলিশের মধ্যে গোঁফ রাখার একটা প্রবণতা ছিল। আর এই গোঁফওয়ালা পুলিশদের প্রতি বাড়তি একটা আকর্ষণও অনুভব করত মানুষ। ভয় পেত শিশু–কিশোরেরা। এখন অবশ্য সেই প্রবণতা অনেকটা কমে গেছে। গোঁফ রাখার প্রতি পুলিশের আকর্ষণও কমেছে।

তাই উত্তর প্রদেশের ‘প্রভিন্সিয়াল আর্মস কনস্টাবুলারি’ বা প্যাক পুলিশদের গোঁফ রাখতে অনুপ্রাণিত করার জন্য প্রতি মাসে ভাতার পরিমাণ ৫০ থেকে বাড়িয়ে ২৫০ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। গোঁফ পরিচর্যার জন্য এই বাড়তি ২০০ রুপি পাবেন কেবল গোঁফওয়ালা পুলিশ সদস্যরাই। আগে দেওয়া হতো ৫০ রুপি।

সম্প্রতি এই বাহিনীর এডিজি পদে যোগ দিয়েছেন বিনোদ কুমার সিং নামের এক পুলিশ কর্তা। তিনি এলাহাবাদের কুম্ভমেলায় গিয়ে বেশ কয়েকজন গোঁফওয়ালা পুলিশ দেখে মুগ্ধ হন। এরপর তিনি ঠিক করেন, সব পুলিশের এমন গোঁফ থাকলে এই বাহিনী একটি আলাদা রূপ নেবে। রাজ্যের পুলিশের অন্য বাহিনীর চেয়ে এই বাহিনীকে অন্যভাবে চেনা যাবে। তাই তিনি বাহিনীকে নতুন করে সাজাতে গোঁফের পরিচর্যার জন্য পরিচর্যা ভাতা ২০০ রুপি বাড়িয়ে দিয়েছেন।

তবে বিনোদ কুমার সিং এ কথাও বলেছেন, গোঁফ রাখার জন্য তিনি কাউকে জোর করবেন না। এই সিদ্ধান্তে খুশি এই রাজ্যের অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তারা। তাঁরাও বলছেন, অতীতে পুলিশের গোঁফ রাখার ঐতিহ্য আবার ফিরে আসবে।









Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *